শিমুকে হ’ত্যার প’রিকল্পনা ছিল না চা’ঞ্চল্যকর ত’থ্য দিলেন স্বামী নোবেল

শিমুকে হ’ত্যার প’রিকল্পনা ছিল না চা’ঞ্চল্যকর ত’থ্য দিলেন স্বামী নোবেল

অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম শিমুকে হ’ত্যার কোনো প’রিকল্পনা ছিল না বলে দাবি করেছেন তার স্বামী খন্দকার শাখাওয়াত আলীম নোবেল (৪৮)।

তিনি দাবি করেন, সকালে দুজনের মধ্যে ঝ’গড়ার একপর্যায়ে তিনি শিমুকে থা’প্পড় দেন। এতে শিমু তার ওপর চ’ড়াও হন। ক্ষি”প্ত হয়ে শিমুর গলা চে’পে ধরলে তিনি নি’স্তে’জ হয়ে পড়েন।

এদিকে শিমু খু’নের পেছনে দা’ম্পত্য ক’ল’হের বিষয়টি সামনে এলেও স্বজনরা এখনও জানেন না কী নিয়ে তাদের দ্ব’ন্দ্ব। এমনকি হ’ত্যাকা”ণ্ডের সময় ছেলেমেয়েরা একই বাসায় থাকলেও তারা কিছু টে’র পায়নি। স্বামী ও দুই সন্তানকে নিয়ে ঢাকার গ্রিন রোড এলাকায় নিজেদের ফ্ল্যাটে থাকতেন এ অ’ভিনে’ত্রী।

শিমুর ভাই শহীদুল ইসলাম খোকন বলেন, রোববার সকালে তাদের ১৭ বছরের মেয়ে ও ৫ বছরের ছেলে বাসাতেই ছিল। তবে তারা কেউ ঘ’টনা সম্পর্কে কিছু টের পায়নি। ওটা নোবেলদের নিজেদের বাড়ি। নিজেদের থাকার ফ্ল্যাটটা তারা বড় করেই বানিয়েছিল। ঘরগুলো দূরে থাকায় তারা কিছু শুনতে পায়নি। নোবেল ছেলেমেয়েদের বলেছিল— তার মা সকালে শুটিংয়ে বেরিয়েছে। ছেলেমেয়েরা সেই কথাই সবাইকে জানায়।

শিমু-নোবেল দ’ম্পত্তির সন্তানদের মধ্যে বড় মেয়ে উচ্চ মাধ্যমিকের শিক্ষার্থী। আর ছোট ছেলের বয়স ৫ বছর। পু’লিশ বলছে, শনিবার রাতে গ্রিন রোডের ফ্ল্যাটে ঝ’গড়ার একপর্যায়ে স্ত্রী শিমুকে ‘গলা টিপে ধরে হ’ত্যা’র কথা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার

করেছেন তার স্বামী খন্দকার সাখাওয়াত আলীম নোবেল। হত্যার পর তার বন্ধু এসএম ওয়াই আব্দুল্লাহ ফরহাদের সহায়তা নিয়ে লা’শ গু’ম করেছিলেন।

পু’লিশের বর্ণনা অনুযায়ী, শিমুকে হ’ত্যার পর রোববার সকাল ৭টা-৮টার দিকে ফরহাদকে ফোন করে বাড়িতে ডেকে এনে বাইরে থেকে দুটো ব’স্তা এনে শিমুর লা’শ তাতে ভরে সে’লাই করেন নোবেল। এর পর বাড়ির দারোয়ানকে না’শতা আনতে বাইরে পাঠিয়ে

নিজের ব্যক্তিগত গাড়ির পেছনের আসনে শিমুর লা’শ নিয়ে বেরিয়ে যান। প্রথমে নোবেল ও ফরহাদ মিরপুরের দিকে গিয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে লা’শ গুমের উপযুক্ত পরিবেশ না পেয়ে তারা আবার বাসায় ফেরেন। সন্ধ্যায় আবার তারা লা’শ গু’ম করতে মোহাম্মদপুর, বসিলা ব্রিজ হয়ে কেরানীগঞ্জের হজরতপুর ইউনিয়নের কদমতলী এলাকায় যান।

রাত সাড়ে ৯টার দিকে তারা আলীপুর ব্রিজের ৩০০ গজ দূরে সড়কের পাশে ঝোপের ভেতর লা’শ’টি ফেলে চলে যান। রাতেই কলাবাগান মডেল থা’নায় স্ত্রী নিখোঁজের বিষয়ে একটি সাধারণ ডায়েরি করেন শিমুর স্বামী নোবেল। সোমবার লা’শ উ’দ্ধারের পর নোবেল ও ফরহাদকে গ্রে’ফ’তার করা হয়। তাদের তিন দিনের রি’মা’ন্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পু’লি’শ।

বুধবার শিমুর ভাই খোকন বলেন, তাদের স্বামী-স্ত্রীর দ্ব’ন্দ্বের কথা জানতাম। শিমুকে নানাভাবে নি’র্যা’তন করত নোবেল। কিন্তু কী নিয়ে দ্ব’ন্দ্ব তা জানি না।

Comments

No comments yet. Why don’t you start the discussion?

Leave a Reply

Your email address will not be published.